Feelings and Experience with Life and Nature

Popular Posts

Monday, August 12, 2019

Amar Shami | আমার স্বামী


আমার স্বামী 


এই জগতে সবার মধ্যে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক আছে। হয়তো আজ অনেকের স্ত্রী বা অনেকের স্বামী নেই। কিন্তু সবার জীবনে এই দিনটা আসে নিজের স্ত্রী বা স্বামীকে নিয়ে সুখের সংসার করা। সুখে-দুঃখে সঙ্গে থাকা, একে অপরের সব সময় আশেপাশে থাকা। দুজন দুজনকে খুব ভালোবাসা দুজন দুজনের অতি কাছে আশা। সর্বদা বিপদে-আপদে পাশে থাকা। এটাই কর্তব্য স্বামী-স্ত্রীরনিজের ছোট্ট সংসারকে সুখের সংসার গড়ে তোলার জন্য। প্রতিটি স্ত্রী নিজেদের স্বামীকে নিজের গর্ব অহংকার মনে করে আবার অনেকে  মনে করে না। আমার স্বামী যাকে আমি নিজের থেকে খুব বেশি ভালোবাসি আমার স্বামী ও আমাকে খুব ভালবাসে।

husband
আমার স্বামী 

আমার স্বামী এমন যে তাকে কোন কিছুর সঙ্গে তুলনা করা যায় না সব থেকে আলাদা খুবই সহজ সরল। ওর ব্যবহার সম্মান শ্রদ্ধা কথাবাত্রা ভালোবাসা বিচারবুদ্ধি প্রতিদান আত্মমর্যাদা নিজের পরিবারের প্রতি তার আত্মত্যাগ আশা-ভরসা জ্ঞান সবকিছু নিয়ে একদম পরিপূর্ণ। না কম না বেশি একটি মানুষের মধ্যে যা কিছু থাকা দরকার সবকিছুই আছে ওর মধ্যে সবার থেকে অনেক আলাদা শান্ত ভদ্র নম্র ভালো মনের মানুষ। ওর মতো খুব কম মানুষ পাওয়া যাবে এই পৃথিবীতে। আমার স্বামীর সম্বন্ধে যত লিখব সব কম পড়ে যাবে। কারণ আমি ওর মধ্যে মানুষ রূপে ভগবানকে পেয়েছি। আমি তাই নিজেকে অনেক ভাগ্যবতী মনে করি, আমার ঈশ্বর আল্লাহ ভগবান সবকিছু ওর মধ্যে বিরাজ করে। আমি আমার স্বামীকে খুব শ্রদ্ধা করি সম্মান করি, আমার প্রতিটি জীবন আমি আমার স্বামীর হাতে তুলে দিতে চাই। আমার যা কিছু আছে সব ওর মধ্যে নিজেকে বিসর্জন করে দিতে চাই। প্রতি জন্মমে ওর স্ত্রী হয়ে জন্মাতে চাই। ওকে ভালোবেসে ওর হয়ে থাকতে চাই, ওর রঙে নিজেকে রাঙিয়ে, ওর সাজে নিজেকে সাজিয়ে শুধুমাত্র ওর হয়ে বাঁচতে চায়।

আমি আমার জীবনে মনে হয় কোন ভালো কাজ করেছি বা কাউকে কোনো রকমের উপকার সাহায্য করেছি। তাই আজ আমি আমার স্বামীকে পেয়েছি। আমি এটা মনে করি যে আমি আমার স্বামীকে ঈশ্বরের আশীর্বাদ রূপে পেয়েছি, যেটা আমার কাছে অমূল্য সম্পদ। আমি আমার স্বামীকে সারা জীবন আমার করে রাখতে চাই, তার নিজের ইচ্ছা মতো করে। আমার সুখ ভালো যা কিছু আছে সব আমি আমার স্বামীকে দিয়ে দিতে চাই। আর ওর যা কিছু আছে খারাপ মন্দ দুঃখ-কষ্ট সব কিছু আমি নিয়ে সুখী হতে চাই। আমার স্বামী আমার গর্ব আমার অহংকার। আমি আমার স্বামীকে খুব ভালোবাসি ও ঠিক যেমন আছে আমি ঠিক তেমন ওকে স্বামী রুপে স্বীকার করতে চাই। ওর ভালোবাসায় নিজেকে ভরিয়ে আমাদের ছোট্ট সুখের সংসার গড়ে তুলতে চাই। ও যেমন সাজাতে চায় ঠিক তেমনি ওর হাতে নিজেকে গড়ে তুলতে চাই। ওর প্রতিটি ইচ্ছা আমি পূরণ করতে চাই ওর আত্মত্যাগ ভালোবাসা আশা-ভরসা বিশ্বাস প্রতিদান সবকিছুকে আমি শ্রদ্ধা করি সম্মান করি। ওর ভালবাসাকে শ্রদ্ধা আত্মমর্যাদা দিয়ে আমার এই বুকের মাঝখানে রাখতে চাই। আমি আমার প্রতিদিন ওর পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করে, ওর বুকে মাথা রেখে, আমার সারা দিন আমি শুরু থেকে শেষ করতে চাই।

আমার স্বামী আমার জন্য খুব লাকি। ও আমার জীবনে আসতে আমি নিজেকে চিন্তে পেরেছি। নিজের জীবনের মানে জানতে পেরেছি, নিজেকে আরো ভালো করে পরিবর্তন করতে পেরেছি। নিজের ভালো মন্দ বোঝা  ব্যবহার আচার আচরণ কথাবাত্রা রাগ না করা ভালো ভাবে সবার থেকে মেশা সবকিছুর বোঝার ক্ষমতা পেয়েছি। আমি ওকে আমার স্বামীর রুপে পেয়ে নিজেকে অনেক ধন্য মনে করি। মানুষের কাছে টাকা পয়সা ধন সম্পত্তি থাকলে সে খুব ধনী। কিন্তু আমাদের কাছে কিছু নেই টাকা পয়সা ধন সম্পত্তি কিছু নেই। কিন্তু আমরা নিজেদের কে ধনী মনে করি, আমরা মন থেকে দুজন দুজনকে ভালবাসতে জানি, বিপদে-আপদে একে অপরের পাশে থাকতে জানি,  নিজের ছোট সংসারকে সুখী করতে জানি। দুঃখ কষ্টকে জয়ী করে সুখ ফিরিয়ে আনতে জানি। যতই বাধা আসুক না কেন নিজের লক্ষ্য কে জয় করে তাকে নিজের করে নিতে পারি। যতই দুঃখ কষ্ট আসুক না কেন যতই বিপদে-আপদে বাধা যাই কিছু আসুক না কেন। আমরা দুজন সঙ্গে থাকলে সব কিছুকে হার মানিয়ে আমরা ঠিক নিজের লক্ষ্যে পৌঁছে যাবো সব বাধা অতিক্রম  করে।

 আমরা দুজন  দুজনকে কোনদিনও একা ছাড়বো না। আমরা দুজনে সবসময় এক হয়ে সবকিছু কে ঠিক জয় করে নেবো। আমরা দুজন দুজনার ক্ষমতা শক্তি হয়ে দাঁড়াবো। এর জন্য যদি এই জন্ম ও কম পড়ে যায় তাহলে প্রতিটি জন্ম আমরা দুজন দুজনের শক্তি ক্ষমতা আশা-ভরসা বিশ্বাস সবকিছু দিয়ে নিজের পরিবারের জন্য আনন্দ সুখ সবকিছু ফিরিয়ে আনব। আমাদের জীবনকে আমরা ভালোবাসা দিয়ে ভরিয়ে দেবো, আমরা প্রতি জন্মমে দুজন দুজনকে স্বামী-স্ত্রী রূপে পেতে চাই। দুজন দুজনের জন্যই পৃথিবীতে আসতে চাই। আমার স্বামী আমার প্রতিটি ইচ্ছা পূরণ করতে ভালোবাসে। আমি কি চাই কি চাই না সবকিছু নজর রাখে, আমার প্রতিটি কথা না বলার আগেই বুঝে যায়। এক এক সময় এমন হয় যে আমি যেটা মনে করি বলার জন্য বা কিছু করার জন্য সেটা আমার স্বামীকে আমি কিছু বলার আগেই ও বুঝতে পেরে যায় আমি কি বলতে চাইছি ওকে তখনই ও আমাকে আমার মনের কথা বলে দেয়। তখন আমি অবাক হয়ে যাই যে ও কিভাবে বুঝে নিলো আমার মনের কথা। কারণ আমরা দুজনে একে অপরকে মন থেকে বোঝার ক্ষমতা রাখি। আমরা দুজনে ভালোবাসার পবিত্র বন্ধনে মন থেকে আবদ্ধ হয়েছি। আমরা দুজনে একে অপরের মধ্যে বিরাজ করি। তাই জন্যে আমরা দুজন দুজনার না বলা কথা ও বুঝে যাই। আমরা দুজন দুজনে দুজনকে পেয়ে খুব ভাগ্যবান মনে করি। এখন তো কেউ মন থেকে নয় টাকাপয়সা ধন সম্পত্তি শরীর এইসব দেখে সম্পর্ক তৈরি করতে চায়। ভালোবেসে শুধু মন কে নিয়ে খেলা করে জীবন নষ্ট করতে চাই।

এরকম জগতে আমি যে ওর মতন একজন জীবনসঙ্গি কে পেয়েছি স্বামী হিসেবে। সেটা আমার কাছে অনেক বেশি পাওয়া, প্রতিটি স্ত্রী এটাই চাই যে তার স্বামী তাকে যেন মন-প্রাণ থেকে ভালোবাসে। এদিকেও আমি সবার থেকে অনেক সুখী ভাগ্যবান মনে করি নিজেকে, আমার স্বামী আমাকে ঠিক আমার মনের মতন করে, প্রেম ভালোবাসা সুখ মনের শান্তি ইচ্ছা দিয়ে ভরিয়ে দেয়। এটা আমার পরম সৌভাগ্য ওকে আমি স্বামী রুপে পেয়ে গ্রহণ করেছি। আমি ঈশ্বরের কাছে এটাই প্রার্থনা করি যে, আমার স্বামী মনের সব ইচ্ছা আশা যত রকমের ইচ্ছা কামনা আছে সব তুমি পুরণ করে দাও। আমি আমার স্বামীকে ছাড়া আর কিছু চাই না আমরা দুজনে আমাদের নিজেদের বাড়িতে সুখে-দুঃখেসঙ্গে থাকতে চাই, নিজের পরিবারকে ভালোবাস তে চাই।

sfs 21
sfs 21

          *হে ঈশ্বর তুমি আমার স্বামীর সব মনের ইচ্ছা কামনা যা কিছু চায় আমার স্বামীর সব তুমি ওকে দিয়ে দাও। আমার সব ভালো সুখ তুমি ওকে দিয়ে দাও। হে ঈশ্বর তুমি আমাদের দুজনকে আশীর্বাদ করো, আমরা দুজন যাতে খুব তাড়াতাড়ি দুজন দুজনকে স্বামী-স্ত্রী অধিকারে পাই। আমরা দুজনে যেন নিজেদের সুখের সংসার ছোট্ট পরিবার তৈরি করে সবাই এক সঙ্গে থাকতে পারি।*

No comments:

Post a Comment